Home » » কৌতুক পড়ুন আর হাসুন funny Bangla jokes

কৌতুক পড়ুন আর হাসুন funny Bangla jokes

কৌতুক পড়ুন আর হাসুন funny Bangla jokes




Bonus Jokes- চাকরির ইন্টারভিউ দিতে গেছে বল্টু-

প্রশ্নকর্তাঃ একটা প্লেনে ৫০টা ইট আছে, একটা ইট ফেলে দিলে থাকে কয়টা?

বল্টুঃ এটা তো সোজা। ৪৯টা।

প্রশ্নকর্তাঃ আচ্ছা, একটা ফ্রিজে হাতি রাখার তিনটা স্টেপ কী কী?

বল্টুঃ ফ্রিজটা খুলুন, হাতিটা ঢোকান, এরপর ফ্রিজের দরজা বন্ধ করে দিন।

প্রশ্নকর্তাঃ একটা ফ্রিজে একটা হরিণ রাখার চারটা স্টেপ কী কী?

বল্টুঃ ফ্রিজটা খুলুন, হাতিটা বের করুন, হরিণটা ঢোকান, এরপর ফ্রিজের দরজা বন্ধ করে দিন।

প্রশ্নকর্তাঃ বনে সিংহের আজকে জন্মদিন। সবাই এসেছে শুধু একজন ছাড়া। কে আসেনি এবং কেন?

বল্টুঃ হরিণ আসেনি। কারণ সে ফ্রিজে।

প্রশ্নকর্তাঃ এক বৃদ্ধা কুমির ভর্তি একটা খাল পার হলো কোনো ক্ষতি ছাড়াই, কীভাবে?

বল্টুঃ কারণ সব কুমির সিংহের জন্মদিনে গিয়েছে।

প্রশ্নকর্তাঃ শেষ প্রশ্ন, তার পরও বৃদ্ধা মারা গেলেন,কেন?

বল্টুঃ উমম…আমার মনে হয়,তিনি খালের পানিতে ডুবে গিয়েছিলেন?

প্রশ্নকর্তাঃ না, প্লেন থেকে যে ইটটা পড়ে গিয়েছিল, সেটা তার মাথায় পড়েছিল, আপনি এখন আসতে পারেন…:)





তিন বন্ধু একটি বিল্ডিংয়ের ১০৮ তলায় থাকে। তারা তিনজন প্রতিদিন লিফট দিয়ে বাসায় আসা যাওয়া করে। একদিন লিফট নষ্ট হয়ে যায়। তাই তাদের সিঁড়ি দিয়ে আজ উঠতে হবে। তখন এক বন্ধু বলল, “আমাদের মধ্য হতে দুইজন দুইটা হাসির গল্প বলবে, আর একজন একটা কষ্টের গল্প বলবে। তাহলে আমরা গল্পগুলো এনজয় করতে করতে ১০৮ তলায় পৌছে যাব। প্রথম জন একটা হাসির গল্প বলল, তারা ৪৫ তলায় পৌছে গেল। আর একজন আরেকটি হাসির গল্প বলল, তারা ৯৯ তলায় পৌছে গেল।

তৃতীয় জন বলল, “কষ্টের গল্প আর কি বলব, আমার তো ফ্ল্যাটের চাবি নিচে গাড়িতে ফেলে এসেছি!!!”





শিক্ষক: মশা মাছি অনেক রোগ ছড়ায়, তাদের বংশ বৃদ্ধি রোধ করতে হবে।

ছাত্র: হা হা হা হি হি হি হি হি হি…..

শিক্ষক: হাসির কি হলো?

ছাত্র: স্যার এতো ছোট বেলুন বানাবেন ক্যামনে!!!





সেদিন সি এস সি আর হাসপাতালে ডিউটি করার সময়, এক সহকর্মী বড়ভাই জিজ্ঞেস করলেন, “ক’টা বাজে দেখ তো?” উত্তর দেই, “জানি না, ঘড়ি দেয়ালেরটাও নষ্ট, আমার হাতেরটাও।” (উল্লেখ্য, তিনি যেদিকটায় বসেছিলেন, সেখান থেকে দেয়াঘড়িটা দেখা যায় না।) তিনি আমার হাতঘড়ির দিকে ভাল করে খেয়াল করে বলেন, “কই, ঘড়ি তো চলে দেখি …‌”

“শুধু সেকেন্ডের কাঁটা চলে, ঘন্টা-মিনিটের কাঁটা চলে না, নষ্ট।”

“ঘন্টা মিনিটের কাঁটা নষ্ট হইলে, এই ঘড়ি কি জন্য পড়স?” বড়ভাই তাজ্জব।

“রোগীর পাল্‌স দেখি।





এক মেয়ের কাছে একটি অপরিচিত নাম্বার থেকে কল আসল।

মেয়ে : হ্যালো.

ছেলে : তোমার কি কোন বয়ফ্রেন্ড আছে??

মেয়ে : হ্যাঁ আছে কিন্তু আপনি কে??

ছেলে : আমি তোর ভাই, দাঁড়া আজকে বাড়িতে আসি তোর খবর আছে!!!

কিছুক্ষণ পর মেয়েটির নিকট আবার অপরিচিত নাম্বার থেকে আরেকটি কল আসল-

মেয়ে : হ্যালো!

ছেলে : তোমার কি কোন বয়ফ্রেন্ড আছে??

মেয়ে : না।

ছেলে : তাহলে আমি কে??

মেয়ে: স্যরি স্যরি জান! আমি মনে করেছি এটা আমার ভাই।

ছেলে : আমি তোর ভাই-ই, আজ তোর একদিন কি আমার একদিন!!!





একদিন জুমার নামায পড়ে, বাসায় ফেরার আগে, একটা চিপাগলির ভেতর আরেকটা অতিচিপাগলির মাথায় দাঁড়িয়ে মার্লবোরো ফুঁকছিলাম, পরিচিত মুরুব্বীদের চোখ বাঁচিয়ে। ওখানে একটা ঘরের ভেতর এক পিচ্চিকে তার মা নামতা পড়াচ্ছিলেন।

মাঃ “দুই একে?”

পিচ্চিঃ (দূর করে, টেনে টেনে) “দুউউইই”

মাঃ “দুই দুগুণে?”

পিচ্চিঃ “চাআআর”

মাঃ “তিন দুগুণে?”

পিচ্চিঃ “ছঅঅয়”

মাঃ “চার দুগুণে?”

পিচ্চিঃ “আঠেরো” (!!!)

মাঃ (শাসনের কড়া সুরে) “কি? চার দুগুণে কত?”

পিচ্চিঃ (আবারো সুর করে) “আঠেরোওও”

মাঃ “ইন কি হদ্দে তুই? আবার হ” [এগুলো তুই কি বলছিস? আবার বল]

পিচ্চিঃ “আবার?”

মাঃ “অ, ফইল্লাত্তুন হ” [হ্যাঁ, প্রথম থেকে বল]

পিচ্চিঃ “দুই একে, দুউউইইই; এঁএঁ(চিন্তিন্বিত) দুই দুগুণে, চাআআর; এঁএঁ, তিন দুগুণে, ছঅঅঅয়; এঁএঁম, চার দুগুণে, আঠেরোওও …”

মাঃ “আই! তিন দুগুণে ছ, ছ আর দুইয়ে হত?”

পিচ্চিঃ (একটু চুপ থেকে) “আঠেরো”

মাঃ “এই, এইবার ফিট্ট্যুম দরি, একত্তুন দশ গুন সাই” [এইবার পিটা দেব, এক থেকে দশ গোন তো]

পিচ্চিঃ “এক, দুই, তিন, চার, পাঁচ, ছয়, সাতেরো, আঠেরো …” (!!!)





প্রেমিকঃ তুমি আমাকে খুব ভালোবাস, তাই না।
প্রেমিকঃ হ্যাঁ। সত্যি ভালোবাসি!
প্রেমিকাঃ সত্যি?
প্রেমিকঃ সত্যি!
প্রেমিকাঃ সত্যি?
প্রেমিকঃ (রাগান্বিত হয়ে) সত্যি নয় তো কী?
বিশ্বাস না হলে মলি, পলি, জুলিকে জিজ্ঞেস করে দেখো। ওদেরকেও আমি একই কথা বলেছি। প্রেমিকাঃ যদি তোমার সঙ্গে আমার বিয়ে হয়। তবে তোমার খাবারে আমি বিষ মিশিয়ে দেব। প্রেমিকঃ আর সত্যিই যদি তোমার সঙ্গে আমার বিয়ে হয় আমি এই বিষ মেশানো খাবার নিশ্চিন্তমনে খেয়ে নেব!





একজন ফাদার চার্চের জন্য কিছু টাকা তুলতে চান। তিনি বিশপকে জিজ্ঞেস করলেন, কিভাবে কিছু টাকা আয় করা যায় বলুন ত! চার্চে কিছু সংস্কার কাজ করা হবে। কিন্তু ফান্ডে যথেষ্ট টাকা নাই। বিশপ বুদ্ধি দিলেন, শহরে ঘোড়ার রেস হয় প্রতি সপ্তাহে। একটা ঘোড়া কিনে সেখানে অংশ নাও। পরের সপ্তাহেই ফাদার গেলেন ঘোড়া কিনতে। কিন্তু ঘোড়ার দাম শুনে তার চক্ষু চড়ক গাছে। বেচারা আর কিছু কিনতে না পেরে একটা গাধা কিনে নিয়ে চলে এলেন। শহরে এসে ভাবলেন, কিনছি যখন গাধা, সেটাকেই রেসে লাগাই। কি আর এমন হবে যদি হেরে যাই।

রেসের ময়দানের সবাইকে অবাক করে দিয়ে গাধাটা ঘোড়ার রেসেই তৃতীয় হয়ে বসল। শহর জুড়ে গাধার প্রশংসা আর তার কীর্তির আলাপ হচ্ছে। পত্রিকাগুলাও পরদিন ফলাও করে খবর ছাপাল, Father’S ASS SHOWS!!!

ফাদার গাধাটাকে খুব ভালো ভালো খাবার দেয়া শুরু করলেন। পরের সপ্তাহেও রেসে অংশ নিলেন গাধা নিয়েই। এইবার তার গাধা রেসের প্রথমেই। পরদিন বিশাল ছবি সহ সংবাদপত্রের শিরোনাম- FATHER’S ASS OUT IN FRONT!!!

ফাদার আগ্রহ নিয়ে বিশপের সাথে দেখা করতে গেলেন। ফান্ডে বেশ ভালো টাকা জমা হচ্ছে গাধাটার কারনে। এদিকে গাধাটা আবার শহরের হিরো হয়ে গেছে। কিন্তু বিশপ পেপারের হেড লাইনগুলো পছন্দই করেন নাই। তিনি ফাদারকে হুকুম দিলেন, বদমাশ গাধাকে আর রেসে দিবেন না। ফাদার তাই করলেন।রেসে কভার করতে আসা সাংবাদিকেরা জিজ্ঞেস করল গাধাটা রেসে নাই কেনো? সহজ-সরল ফাদার বলে দিলেন বিশপের নির্দেশেই এই কাজ করা হয়েছে। রেসিং ডে এর পরের দিন পেপারে আসল- BISHOP SCRATCHES FATHER’S ASS

বিশপ ত এইবার পুরা ক্ষেপা। তার কড়া নির্দেশ এলো ফাদারের কাছে। গাধাকে সরাও। ফাদার আর কি করবেন? এত শখের গাধা তার। কাছের এক সন্ন্যাসী আশ্রমে তার পরিচিত এক নান থাকেন। তিনি গাধাটা নানকে দিয়ে দিলেন। পরের দিনে পেপারে আসল, NUN HAS BEST ASS IN TOWN!!! এইবার পেপারের হেডিং দেখে বিশপ ফিট হয়ে পড়ে গেলেন। জ্ঞান ফিরে আসার পর নানকে খবর পাঠালেন, দয়া করে গাধাটা বিক্রি করে দেন।

নান তাই করলেন। নামমাত্র মূল্যে বিক্রি করে দিলেন গাধাটা। পেপারে খবর চলে আসল, NUN SELLS ASS FOR 1000 Taka.

বিশপের মাথা এইবার আউলিয়ে গেছে। পেপারগুলা যা শুরু করছে!!!! গাধাটার হাত থেকে যেভাবেই হোক মুক্তি পেতে হবে। তিনি নানকে নির্দেশ দিলেন, আপনি গাধাটা আবার কিনে নেন। এরপর সেটাকে জঙ্গলে ছেড়ে দেন। এরসাথে আমাদের চার্চের যেন কোনরূপ সম্পর্ক না থাকে। নান গাধাটা কিনে ফেরত নিলেন। তারপর বনে নিয়ে ছেড়ে দিলেন। সংবাদ সম্মেলন করে জানালেন, আমার গাধাটার সাথে চার্চের কোনরূপ সম্পর্ক আর নাই। সেটাকে মুক্ত করে দেয়া হয়েছে। কেউই আর গাধাটার মালিক নয়। পরেরদিন পেপারের হেডিং- NUN ANNOUNCES HER ASS IS WILD AND FREE.

সেইদিন সকালে হার্ট এটাকে বিশপ মারা গেলেন।





সেনাবাহিনীতে নিয়গের জন্য প্রার্থীদের স্বাস্থ্য পরিক্ষা করা হচ্ছে যাকে মেডিকেল চেক-আপ। সেনাবাহিনীর একজন ডাক্তার খুটিয়ে খুটিয়ে দেখছেন দরকার হলে দিগম্বর করছেন। তো একজনকে দিগম্বর করে বললেন, “এই ছোকরা, তোর পাছা এত কালো কেন? তুই কি বিড়ি, সিগারেট কিছু খাস নাকি?”

ছোকরাও বেশ ত্যাঁদোড়, “কেন স্যার, পাছা দিয়া কি ধোঁয়া বের হচ্ছে?”





প্রেমিকঃ তোমার মোবাইল এত ব্যস্ত থাকে কেন? কোন অজুহাত চাই না- এক কথায় উত্তর দেবে। প্রেমিকাঃ এক কথায় বলতে পারব না। প্রেমিকঃ কেন? প্রেমিকাঃ ছয় জনের সঙ্গে কথা বলি। ছয় কথা বলতে হবে!





প্রেমিকঃ তোমার কি মনে হয় আমি আরও একটি মেয়ের সঙ্গে প্রেম করি? প্রেমিকাঃ শুধু মনে হয়ই না, আমি নিশ্চিত। তোমার শার্টে জড়িয়ে থাকা ওই লম্বা চুলগুলো কোনভাবেই আমার নয়, অন্য একজনের! হলফ করে বলতে পারি। প্রেমিকঃ (অবাক!) প্রেমিকাঃ কি ব্যাপার এত অবাক হচ্ছ কেন? প্রেমিকঃ অবাক হচ্ছি কারণ তিন তিনটি মেয়ের চুলে তুমি কোন পার্থক্য খুঁজে পাচ্ছ না বলে!

দম ফাটানো হাসির কৌতুকbangla koutuk harun kisinzar ,bangla koutuk 2018 ,bangla koutuk 2018 ,koutuk bangla new SMS bangla koutuk free download ,bangla koutuk mojibor ,bangla koutuk book app ,bangla koutuk golpo ছোট কৌতুক ,হাসির কৌতুক গল্প ,কৌতুক বাংলা ভিডিও ,মজার কৌতুক ১৮+B,কৌতুক ২০১৮ মজার হাসির কৌতুক ,মজার কৌতুক গল্প হাসির কৌতুক ১৮ ,হাসি sms হাঁসির sms ,মজার sms ,হাসির sms চাই ,বোকা বানানোর sms ,ইসলামিক sms ,বোকা বানানোর কৌশল ,সুখের sms