Wednesday, November 25, 2020

কিভাবে এন্ড্রয়েড মোবাইল এর স্ক্রিনে আপনার কম্পিউটারের কাজ করবেন ও মনিটর শেয়ার করবেন

 

কিভাবে এন্ড্রয়েড মোবাইল এর স্ক্রিনে আপনার কম্পিউটারের কাজ করবেন ও মনিটর শেয়ার করবেন 

আপনার উইন্ডোজ পিসিতে আপনাকে যদি কিছু হার্ড মাল্টিটাস্কিং করতে হয় তবে দ্বিতীয় মনিটর সেই সব কাজে আপনাকে অনেক হেল্প করতে পারে। যদি আপনি আপনার উইন্ডোজ ডেস্কটপটিকে ডাবল মনিটরের সেটআপ করে  কাজের এরিয়া কে "প্রসারিত" করতে চান, তাহলে মনে হয় আপনার কাছে দুটি কম্পিউটার পাশাপাশি রয়েছে, প্রতিটি মনিটরের সাথে সাথে উইন্ডো এবং প্রোগ্রামগুলির নিজস্ব সেট রয়েছে যেগুলো একই সাথে আপনি ইউজ করতে পারেন। 


তবে একই কাজে দ্বিতীয় মনিটর বা একাধিক পিসি কিছুটা ব্যয়বহুল হতে পারে সত্যি বলতে আমাদের বাংলাদেশিদের জন্য সত্যিই এটা এক্সপেন্সিভ। এর উপর আছে আপনি ডাবল পিসি নিয়ে ঘুরতেও পারবেন না আপনার ল্যাপটপটি এর মত।

এই সমস্যার সমাধান হিসাবে আছে SpaceDesk 

 স্পেসডেস্ক : এটি এমন সফ্টওয়্যার যা আপনাকে সহজেই আপনার উইন্ডোজ ডেস্কটপের জন্য যে কোনও অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসকে দ্বিতীয় মনিটর হিসাবে ইউজ করতে দেয়। এর বোনাস হচ্ছে যেহেতু  এটি ওয়াই-ফাইতে কাজ করে, তাই এর কোনও অগোছালো তার নেই, তাই ঝামেলাহীন ভাবে আপনার কাজ করতে পারবেন। 


প্রথম ধাপঃ  আপনার পিসিতে স্পেসডেস্ক ইনস্টল করুন : Download SpaceDesk

প্রথমত, আপনাকে আপনার উইন্ডোজ পিসিতে স্পেসডেস্ক ড্রাইভারগুলি ইনস্টল করতে হবে। নিচে লিংক দিয়ে দিচ্ছি সেখান থেকে ডাউনলোড করে নিন। তারপরে আপনি উইন্ডোজ পিসি (সার্ভার) জন্য স্পেসডেস্ক ড্রাইভ সফ্টওয়্যার এর অধীনে থাকা আপনার ভার্সন অনুযায়ী ডাউনলোড করুন। 


বেশিরভাগ আধুনিক পিসিগুলি ৬৪-বিট, সুতরাং আপনি যদি গত ৫ বা তত বছরের মধ্যে আপনার পিসি কিনে থাকেন তবে সংশ্লিষ্ট বোতামটি ক্লিক করুন। তবে আপনার কম্পিউটারটি ৩২-বিট হলে ৩২ বিটের লিংকে যান। 

আরো জানুন ঃ ফেসবুক টুইটার টিপস 

 দ্বিতীয় ধাপঃ এর পরে, কেবল ইনস্টলার ফাইলটি চালু করুন, তারপরে আপনার পিসিতে স্পেসডেস্ক ইনস্টল করার স্টেপ গুলো ফলো করুন। ইনস্টলেশন শেষ হয়ে গেলে, আপনার কম্পিউটারটি অন অফ করুন। 

  • আরো দেখুনঃ পিসির জন্য ওয়ালপেপার ডাউনলোড  ( *শরিফ ভাই আপনার সাইটের লিংক এর জন্য) 


তৃতীয় ধাপঃ  আপনার অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসে স্পেসডেস্ক ইনস্টল করুন

কম্পিউটার এর কাজ শেষ এবার পরবর্তী মিশন আপনার অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসে স্পেসডেস্ক ইনস্টল করা! 

( সবাই জানে কিভাবে এপ ইন্সটল করতে হয়। আপনি যদি না জেনে থাকেন তাহলে ডাবল মনিটর দিয়ে কাজ নেই আপনার তাই এই পোস্ট ও এখন না পড়লেও চলবে। আগে ব্যাসিক শিখুন!!) 


চতুর্থ ধাপঃ  আপনার পিসিতে আপনার ফোনটি কানেক্ট করুন

মোবাইল আর পিসি তে উভয় অ্যাপ্লিকেশন ইনস্টল করা শেষ। এবার কম্পিউটার কে মোবাইলে দেখার পালা!

প্রথমে নিশ্চিত হয়ে নিন যে আপনার অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসটি আপনার পিসির মতো সেম ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্কের সাথে  কানেক্টেড, 

এবার আপনার ফোন বা ট্যাবলেটে স্পেসডেস্ক অ্যাপ্লিকেশনটি খুলুন। অ্যাপ্লিকেশনটি আপনার কম্পিউটারটি কে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ডিটেক্ট করবে,  এবার কানেক্ট বাটনে আলতো চাপুন।

তবে, যদি আপনার কম্পিউটারটি কে অটোমেটিক ভাবে পাওয়া না যায়, আপনাকে "অটো নেটওয়ার্ক সার্চ " এর পাশের বাক্সটি আন-টিক করতে হবে, 

তারপরে ম্যানুয়ালি আপনার কম্পিউটারের লোকাল আইপি ঠিকানা লিখতে হবে। আপনি যদি নিজের লোকাল আইপি ঠিকানাটি না জানেন, এই লিঙ্কটিতে চলে যান। 

ওয়্যারলেস দ্বিতীয় স্ক্রিন হিসাবে আপনার ফোন বা ট্যাবলেট ব্যবহার করুন

অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশনটিতে "কানেক্ট" ট্যাপ করার কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই, আপনার কম্পিউটারটি বীপ করবে। ঠিক একই সময়ে, আপনার উইন্ডোজ ডেস্কটপটি আপনার অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসে উপস্থিত হবে, 


আপনি যদি কেবলমাত্র আপনার পিসির স্ক্রিনটি মিরর করার পরিবর্তে আপনার অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসটিকে দ্বিতীয় ডেস্কটপ হিসাবে ব্যবহার করতে চান তবে আপনার উইন্ডোজ ডেস্কটপের কোনও ফাঁকা জায়গাতে রাইট ক্লিক করুন, তারপরে "মনিটর সেটিংস" সিলেক্ট করুন। 

এখান থেকে, "Extend these displays" এপ্লাই করুন। ব্যাস আপনি আপনার পিসিতে এক কাজ আর মোবাইলে আরেক কাজ একই সময়ে করতে পারবেন। 

Saturday, April 11, 2020

ফেসবুকে সুন্দরী মেয়েদের ছবি | ফেসবুকে সুন্দরী মেয়েদের ছবি দেখুন

ফেসবুকে সুন্দরী মেয়েদের ছবি | ফেসবুকে সুন্দরী মেয়েদের ছবি দেখুন



ভারতের মেয়েদের ছবি



ফেসবুকের ফটো


ফেসবুকে সুন্দরী মেয়েদের ছবি দেখান

ফেসবুকে সুন্দরী মেয়েদের ছবি

ফেসবুকে মেয়েদের ছবি













Friday, April 10, 2020

সুন্দরী মেয়েদের মোবাইল নম্বর - প্রেম করার জন্য ইমু নাম্বার |Meyeder phone number

সুন্দরী মেয়েদের মোবাইল নম্বর - প্রেম করা জন্য ইমু নাম্বার |Meyeder phone number


মেয়েদের মোবাইল নম্বরের তালিকা

Rupa Akter :-  +8801938564501

Soniya Akter :- +8801882439936

Munni jahan :- +880191064441

Lipa Khatun :- +880193216594


ছোট মেয়েদের নাম্বার

Asma Akter :- +8801722266862

Monira Akter:- +8801638590967

Tahmina sultana :- +8801752379355


প্রেম করার জন্য মেয়েদের মোবাইল নাম্বার 

Rokiya :- +8801752379355

Habiba :- +8801784022233

Munni :- +8801832124048 



হোটেলের মেয়েদের মোবাইল নাম্বার

Rumana:- +8801628449383

Arifa Akter :- +8801904605852

Tamanna :- +8801947995907

Aciya Akter :- +8801931752066


মেয়েদের ইমু নাম্বার   

Lija Akter :- +8801994675246 

Sumi Akter : +8801752681999

Soniya :- +8801882901134

Monira: +8801996-383389


Wednesday, February 5, 2020

এক নজরে ২০২০ সালে সরকারি ছুটির তালিকা

এক নজরে ২০২০ সালে সরকারি ছুটির তালিকা 

নতুন বছরের ক্যালেন্ডার অনুযায়ী, ২০২০ সালে মোট সরকারি ছুটি ২২ দিন। এর মধ্যে সাধারণ ছুটি ১৪ দিন। আর নির্বাহী আদেশে ছুটি ৮দিন।


এছাড়া মুসলিমদের জন্য ঐচ্ছিক ছুটি রয়েছে ৫ দিন, হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের জন্য ঐচ্ছিক ছুটি ৮ দিন, খ্রিস্টানদের জন্য রয়েছে ৮ দিন ও বৌদ্ধদের জন্য ৫ দিন।
সাধারণ ছুটিসমূহ

২১ ফেব্রুয়ারি, শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস, ১৭ মার্চ, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম দিবস;

২৬ মার্চ, স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস; ১ মে, মে দিবস; ৬ মে, বুদ্ধ পূর্ণিমা; ২২ মে, জুমাতুল বিদা; ২৫ মে, ঈদ-উল-ফিতর; ১ আগস্ট, ঈদ-উল-আযহা; ১১ আগস্ট, শুভ জন্মাষ্টমী; ১৫ আগস্ট, জাতীয় শোক দিবস; ২৬ অক্টোবর, দুর্গাপূজা (বিজয়া দশমী); ৩০ অক্টোবর, ঈদ-ই-মিলাদুন্নবী (সা.); ১৬ ডিসেম্বর, বিজয় দিবস; ২৫ ডিসেম্বর, যিশু খ্রিস্টের জন্মদিন (বড় দিন) সহ মোট ১৪ দিন।


নির্বাহী আদেশে সরকারি ছুটিসমূহ
৯ এপ্রিল, শব-ই-বরাত; ১৪ এপ্রিল নববর্ষ; ২১ মে, শব-ই-ক্বদর; ২৪ ও ২৬ মে, ঈদ-উল-ফিতর (ঈদের পূর্বের ও পরের দিন); ৩১ জুলাই ও ২ আগস্ট, ঈদ-উল-আযহা (ঈদের পূর্বের ও পরের দিন); ৩০ আগস্ট, আশুরা-সহ মোট ৮ দিন।


ঐচ্ছিক ছুটি (মুসলিম পর্ব)সমূহ হচ্ছে- ২৩ মার্চ, শব-ই-মিরাজ; ২৭ মে, ঈদ-উল-ফিতর (ঈদের পরের ২য় দিন); ৩ আগস্ট, ঈদ-উল-আযহা (ঈদের পরের ২য় দিন); ১৪ অক্টোবর, আখেরি চাহার সোম্বা; ২৭ নভেম্বর, ফাতেহা-ই-ইয়াজদাহম-সহ মোট ৫ দিন।

ঐচ্ছিক ছুটি (হিন্দু পর্ব) সমূহ
২৯ জানুয়ারি, শ্রী শ্রী সরস্বতী পূজা; ২১ ফেব্রুয়ারি, শ্রী শ্রী শিবরাত্রি ব্রত; ৯ মার্চ, শুভ দোলযাত্রা; ২২ মার্চ, শ্রী শ্রী হরিচাঁদ ঠাকুরের আবির্ভাব; ১৭ সেপ্টেম্বর, শুভ মহালয়া।
২৫ অক্টোবর, শ্রী শ্রী দুর্গাপূজা (নবমী); ৩০ অক্টোবর, শ্রী শ্রী লক্ষ্মী পূজা; ১৪ নভেম্বর, শ্রী শ্রী শ্যামা পূজা-সহ মোট ৮ দিন।


ঐচ্ছিক ছুটি (খ্রিস্টান পর্ব) সমূহ
১ জানুয়ারি, ইংরেজি নববর্ষ; ২৬ ফেব্রুয়ারি ভস্ম বুধবার; ৯ এপ্রিল, পুণ্য বৃহস্পতিবার; ১০ এপ্রিল, পুণ্য শুক্রবার; ১১ এপ্রিল, পুণ্য শনিবার; ১২ এপ্রিল, ইস্টার সানডে; ২৪ ও ২৬ ডিসেম্বর, যিশু খ্রিস্টের জন্মোৎসব (বড় দিনের পূর্বের ও পরের দিন)-সহ মোট ৮ দিন।


ঐচ্ছিক ছুটি (বৌদ্ধ পর্ব)সমূহ
৮ ফেব্রুয়ারি, মাঘী পূর্ণিমা; ১৩ এপ্রিল, চৈত্র সংক্রান্তি; ৪ জুলাই, আষাঢ়ি পূর্ণিমা; ২ সেপ্টেম্বর, মধু পূর্ণিমা (ভাদ্র পূর্ণিমা); ১ অক্টোবর, প্রবারণা পূর্ণিমা (আশ্বিনী পূর্ণিমা)-সহ মোট ৫ দিন।


ঐচ্ছিক ছুটি (পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকা ও এর বাইরে কর্মরত ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্ত কর্মচারীদের জন্য) সমূহ হচ্ছে- ১২ ও ১৫ এপ্রিল, বৈসাবি ও পার্বত্য চট্টগ্রামের অন্যান্য ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীসমূহের অনুরূপ সামাজিক উৎসব-সহ মোট ২ দিন।

Saturday, December 15, 2018

২০২০ সালের সরকারী ছুটির পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশ govt holiday calendar 2020 bangladesh

২০২০ সালের সরকারী ছুটির পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশ govt holiday calendar 2020 bangladesh

সাধারণ ছুটিরর তালিকা
★:২১ ফেব্রুয়ারি শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস,
★১৭ মার্চ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন,
★২৬ মার্চ স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস,
★১ মে মে দিবস,
★১৮ মে বুদ্ধপূর্ণিমা,
★৩১ মে জুমাতুল বিদা,
★৫ জুন ঈদুল ফিতর,
★১২ আগস্ট ঈদুল আজহা,
★১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস,
★ ২৩ আগস্ট শুভ জন্মাষ্টমী,
★ ৮ অক্টোবর দুর্গাপূজা (বিজয়া দশমী),
★১০ নভেম্বর ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.),
★১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবস
★২৫ ডিসেম্বর যিশু খ্রিষ্টের জন্মদিন (বড়দিন)।




নির্বাহী আদেশে ছুটির তালিকা :
★১৪ এপ্রিল বাংলা নববর্ষ,
★২১ এপ্রিল শবেবরাত,
★২ জুন শবেকদর,
★৪ ও ৬ জুন ঈদুল ফিতরের আগে ও পরের দিন,
★১১ ও ১৩ আগস্ট ঈদুল আজহার আগে ও পরের দিন এবং
★ ১০ সেপ্টেম্বর আশুরা।

ঐচ্ছিক ছুটির তালিকা (মুসলিম পর্ব) :
★৪ এপ্রিল শবেমেরাজ,
★৭ জুন ঈদুল ফিতর (ঈদের ছুটির পরের দ্বিতীয় দিন),
★১৪ আগস্ট ঈদুল আজহা (ঈদের ছুটির পরের দ্বিতীয় দিন),
★২৩ অক্টোবর আখেরি চাহার শম্বা এবং
★৯ ডিসেম্বর ফাতেহা-ই-ইয়াজদাহম।

ঐচ্ছিক ছুটির তালিকা(হিন্দু পর্ব) 
★১০ ফেব্রুয়ারি সরস্বতী পূজা,
★৪ মার্চ শিবরাত্রি ব্রত,
★২১ মার্চ দোলযাত্রা,
★৩ এপ্রিল হরিচাঁদ ঠাকুরের আবির্ভাব,
★২৮ সেপ্টেম্বর মহালয়া, ৭ অক্টোবর দুর্গাপূজা (নবমী),
★১৩ অক্টোবর লক্ষ্মীপূজা এবং
★২৭ অক্টোবর শ্যামাপূজা।

ঐচ্ছিক ছুটির তালিকা(খ্রিষ্টান পর্ব) :
★১ জানুয়ারি ইংরেজি নববর্ষ,
★৬ মার্চ ভস্ম বুধবার,
★১৮ এপ্রিল পুণ্য বৃহস্পতিবার,
★১৯ এপ্রিল পুণ্য শুক্রবার,
★২০ এপ্রিল পুণ্য শনিবার,
★২১ এপ্রিল ইস্টার সানডে এবং
★ ২৪ ও ২৬ ডিসেম্বর যিশু খ্রিষ্টের জন্মোৎসব (বড়দিনের আগে ও পরের দিন)।

ঐচ্ছিক ছুটির তালিকা (বৌদ্ধ পর্ব) :
★১৯ ফেব্রুয়ারি মাঘী পূর্ণিমা,
★ ১৩ এপ্রিল চৈত্রসংক্রান্তি,
★১৬ জুলাই আষাঢ়ী পূর্ণিমা,
★১৩ সেপ্টেম্বর মধু পূর্ণিমা এবং
★১৩ অক্টোবর প্রবারণা পূর্ণিমা।

ঐচ্ছিক ছুটির তালিকা (পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকা ও এর বাইরে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্ত কর্মচারীদের জন্য) :
★১২ ও ১৫ এপ্রিল বৈসাবি ও পার্বত্য চট্টগ্রামের অন্যান্য ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীগুলোর অনুরূপ সামাজিক উৎসব।


সরকারি ছুটির তালিকা ২০২০ pdf, সরকারি ছুটির তালিকা ২০২০ ক্যালেন্ডার, ২০২০ সালের সরকারি ছুটির তালিকা, ২০২০ সালের ছুটির তালিকা, ২০২০ সালের সরকারী ছুটির তালিকা, সরকারি ছুটির তালিকা, 2020 সালের সরকারী ছুটির তালিকা, সরকারী ছুটির তালিকা ২০২০
bangla calendar 2020 bangladesh, bangladesh government calendar 2020 pdf, govt calendar 2020 bd, government holiday calendar 2020 bangladesh, bangladesh holidays 2020, bangladesh govt holiday calendar 2020 pdf
bangladesh 2020, govt holiday calendar 2020 bangladesh

Friday, October 6, 2017

কত দিন সিম বন্ধ থাকলে সিমের মালিকানা থাকবে না আর আপনার

কত দিন সিম বন্ধ থাকলে সিমের মালিকানা থাকবে না আর আপনার



২০১৬ সালের জুন পর্যন্ত আপনার কোনো সিম যদি টানা ১৫ মাস বন্ধ থাকে, তাহলে সেটি আগামী এক মাসের মধ্যে চালু করে নিন। কারণ, যে সিমটি এত দিন ব্যবহার না করে ফেলে রেখেছেন, সেটি আগামী এক মাসের মধ্যে চালু না করলে এর মালিকানা আর আপনার কাছে থাকবে না। সিমের মালিকানা রাখার সময়সীমা বিষয়ে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) গতকাল বৃহস্পতিবার এমন একটি সিদ্ধান্ত নিয়েছে। শিগগির  অপারেটরদের তা জানিয়ে দেবে বিটিআরসি।

বিটিআরসি সূত্রে জানা গেছে, নতুন নিয়ম অনুযায়ী টানা ১৫ মাস বা ৪৫০ দিন একটি সিম ব্যবহার না করা হলে সেটির মালিকানা ধরে রাখতে বাড়তি ৩০ দিন সময় পাবেন গ্রাহক। অর্থাৎ ৪৮০ দিনের মধ্যে বন্ধ থাকা সিমটি চালু না করা হলে সেটির মালিকানা আর গ্রাহকের থাকবে না। এ সময়ের মধ্যে সিম সচল না করা হলে সংশ্লিষ্ট মুঠোফোন অপারেটর সেটি নতুন করে আবার বিক্রি করতে পারবে।

বিটিআরসির মুখপাত্র ও সচিব সরওয়ার আলম প্রথম আলোকে বলেন, একটি সিম টানা ৪৫০ দিন বন্ধ থাকলে সেটি চালু করতে মুঠোফোন অপারেটররা গ্রাহককে একটি নোটিশ বা সময়সীমা বেঁধে দেয়। সেই সময়সীমার মেয়াদ ৯০ দিন ছিল, সেটি কমিয়ে এখন ৩০ দিন করা হয়েছে। এই সময়ের মধ্যে সিমটি সচল না করা হলে সেটির মালিকানা আর গ্রাহকের থাকবে না।

বিটিআরসি সূত্রে জানা গেছে, দেশের সবচেয়ে বড় মুঠোফোন অপারেটর গ্রামীণফোনের ‘০১৭’ নম্বর সিরিজের নম্বর সংকট কাটাতেই এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। নতুন সিদ্ধান্তের ফলে ০১৭ সিরিজের তিন কোটি পুরোনো সংযোগ নতুন করে বিক্রি করতে পারবে গ্রামীণফোন। নতুন সংযোগ বিক্রি করা নিয়ে অপারেটরটি এখন যে সংকটে আছে, এ সিদ্ধান্তে সেই সমস্যা থাকবে না বলে বিটিআরসি মনে করছে।

জাতীয় নম্বর পরিকল্পনা অনুযায়ী বাংলাদেশে মুঠোফোন নম্বর শুরু হয় ‘০১’ দিয়ে। এর সঙ্গে আরও ৯টি অঙ্ক যোগ করে ১১ অঙ্কবিশিষ্ট একটি মুঠোফোন নম্বর তৈরি হয়। প্রতি অপারেটর তাদের জন্য বরাদ্দ নম্বর কোড দিয়ে ১১ অঙ্কের ১০ কোটি নম্বর তৈরি করতে পারে। এর মধ্যে সিটিসেল ০১১, টেলিটক ০১৫, গ্রামীণফোন ০১৭, রবি ০১৮ ও ০১৬ এবং বাংলালিংক ০১৯ নম্বর সিরিজ ব্যবহার করে।

গ্রামীণফোনের ০১৭ সিরিজের বাইরে বর্তমানে ০১০, ০১২, ০১৩ ও ০১৪ নম্বর সিরিজ অব্যবহৃত আছে। গত বছরের আগস্টে গ্রামীণফোনকে ০১৩ নম্বর সিরিজ ব্যবহারের অনুমতি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেও পরে সে সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসে বিটিআরসি।

গ্রামীণফোন বলছে, তাদের বর্তমান ০১৭ সিরিজের ১০ কোটি নম্বর আগামী মে মাসে শেষ হয়ে যাবে। এরপর নতুন সিম প্রতিষ্ঠানটি বাজারে বিক্রি করতে পারবে না। ২৪ এপ্রিল ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিমকে এ বিষয়ে একটি চিঠি দেয় গ্রামীণফোন। চিঠিটি আমলে নিয়ে এ বিষয়ে ইতিবাচক সিদ্ধান্ত নিতে বিটিআরসিকে নির্দেশ দেন তারানা হালিম।

বিটিআরসির হিসাবে, বর্তমানে গ্রামীণফোনের সচল সিমের সংখ্যা ৬ কোটি ছাড়িয়ে গেছে। বাকি ৪ কোটি সিমের ৩ কোটিই অব্যবহৃত অবস্থায় গ্রাহকের হাতে আছে। এ ছাড়া অবৈধ ভিওআইপি ও সঠিকভাবে নিবন্ধিত না হওয়ায় বন্ধ আছে আরও ৬৫ লাখ সিম। আর বিশেষ কারণে সংরক্ষিত আছে আরও ৩৫ লাখ সিম। মালিকানার শর্ত শিথিল করায় ৩ কোটি সিম আবার বিক্রি করতে পারবে গ্রামীণফোন।